Breaking News
Home / জেলা সংবাদ / গাইবান্ধায় পরকিয়ায় দুই সন্তানের জননী উধাও।

গাইবান্ধায় পরকিয়ায় দুই সন্তানের জননী উধাও।

গাইবান্ধা: গাইবান্ধা সদর উপজেলার খোলাহাটি ইউনিয়নের উত্তর আনালেরতাড়ি (চান্দের বাজার) গ্রামে পরকিয়া প্রেমের জোয়ারে ভেসে নগদ এক লক্ষ ২০ হাজার টাকা ও স্বর্ণালংকার সহ আড়াই লক্ষাধিক টাকার মালামাল নিয়ে দুই সন্তানের জননী অজানার উদ্দেশ্যে উধাও। অভাগা স্বামী কর্তৃক গাইবান্ধা সদর থানায় অভিযোগ দায়ের।

অভিযোগে জানা যায়, উক্ত চান্দের বাজার গ্রামের মৃত দুলা মিয়ার পুত্র সোহেল মিয়া ওরফে ড‍্যানো মিয়ার সাথে ইসলামী শরীয়ত মোতাবেক দক্ষিণ আনালেরতাড়ি (হাসেম বাজার)গ্রামের মৃত মন্টু মিয়ার কন‍্যা মাজু বেগমের বিয়ে হয়। দরিদ্র পরিবারের সন্তান ড‍্যানো মিয়া দীর্ঘদিন থেকে ঢাকা, চট্টগ্রামে রিক্সা চালিয়ে সংসার চালিয়ে আসছিল। সংসারে স্বচ্ছলতা আনার জন্য বিভিন্ন সমিতি থেকে ঋণ নিয়ে এই ঋণের টাকা রিক্সা চালিয়ে পরিশোধ করে থাকেন। এমতাবস্থায় পুনরায় স্থানীয় একটি সমিতি থেকে সম্প্রতি ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা উত্তোলন করেন।

এদিকে ড‍্যানোর স্ত্রী মাজু বেগম সুন্দরী হওয়ায় তার রুপ যৌবনের প্রতি লোলুপ দৃষ্টি পড়ে প্রতিবেশী মৃত চাঁন মিয়ার পুত্র কবির মিয়ার(২৮)। এদিকে কর্মের তাগিদে ড‍্যানো মিয়া ঢাকা/চট্টগ্রামে চলে গেলে এই সুযোগ কাজে লাগায় কবির মিয়া। সে প্রতিবেশী হওয়ায় এবং ড‍্যানো মিয়া কর্মের তাগিদে চলে গেলে বাড়ি ফাঁকা পেয়ে বিয়ের পর থেকেই কবির মিয়া বিভিন্ন ছলছুতোয় ড‍্যানো মিয়ার বাড়িতে যাতায়াত করতে থাকে এবং হাসিতামাশা করতে করতে উভয়ের মধ্যে ফাঁকা মাঠে গোল দেয়ার মত পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

অপরদিকে, এই পরকীয়া প্রেমের কাহিনী এলাকায় কানাকানি শুরু হয়। এক পর্যায়ে এই প্রেমের কাহিনী কবির মিয়ার স্ত্রীর কানেও পৌঁছে যায়। কবিরের স্ত্রী স্বামীর এই অনৈতিক কর্মকাণ্ড সহ‍্য করতে না পেরে ৩/৪ মাস আগে স্বামীর ঘর ছেড়ে বাবার বাড়ি চলে যায়। ড‍্যানো মিয়া সম্প্রতি বাড়িতে এসে কিছু ঋণ পরিশোধের উদ্দেশ্যে সমিতি থেকে উল্লেখিত এক লক্ষ ২০ হাজার টাকা উত্তোলন করে বাড়িতে রেখে দেয়। গত ৬ ডিসেম্বর/২০২১ ইং সোমবার বিকাল আনুমানিক তিন টার দিকে কোন কারণ বশত: ড‍্যানো মিয়া বাড়িতে না থাকায় এই সুযোগে উল্লেখিত এক লক্ষ ২০ হাজার টাকা ও স্বর্ণালংকার সহ আড়াই লাখ টাকার মালামাল নিয়ে মাজু বেগম কোলের দুই সন্তান আল ইমরান (১০) ও সোয়াদ মিয়া (৫) কে রেখে পরকীয়া প্রেমিক কবির মিয়ার হাত ধরে অজানার উদ্দেশ্যে পাড়ি দিয়েছে। 

কোলের দুই সন্তানকে নিয়ে ড‍্যানো মিয়া স্ত্রী মাজু বেগমকে অনেক খোঁজাখুঁজি করে কোথাও না পেয়ে স্ত্রী মাজু বেগম ও তার পরকীয়া প্রেমিক কবির মিয়াসহ সহযোগী ৪ জনকে আসামি করে গাইবান্ধা থানায় একটি মামলা দায়ের করার জন্য এজাহার দাখিল করলে সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।

এ ব্যাপারে গতকাল ১১ ডিসেম্বর/২০২১ বিকাল সাড়ে চারটায় সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, দরিদ্র পরিবারের সন্তান ড‍্যানো মিয়া টাকা হারানোর ব‍্যথা ও তার কোলের ফুটফুটে দুইটি ছেলে নিয়ে অসহায়ত্ব অনুভব করছেন। এ সময় সে সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশ কর্তৃক মামলা দায়ের ও কবিরের ভাই কুদরত মিয়া মামলা না করার জন্য বিভিন্ন ভাবে হুমকি ধামকি দেয়ার অভিযোগ সহ দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য জোর দাবি জানান। পরে কবির মিয়ার বাড়িতে গেলে সাংবাদিক আসার খবর পেয়ে কবিরের মা গা ঢাকা দিলেও কবিরের ভাই কুদরত মিয়া আমাদের সাথে কথা বলতে অস্বীকৃতি জানিয়ে বলেন, কবির নামে আমার কোন ভাই নেই! নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বেশ কয়েক জন প্রতিবেশী জানান, এই কুদরত মিয়া ড‍্যানো মিয়া যাতে মামলা করতে না পারেন সেজন্য বিভিন্ন ভাবে চাপ দিচ্ছে।

মামলা করলে ড‍্যানো মিয়ার হাত পা ভেঙ্গে দিবে, আবার হয়তো ড‍্যানো মিয়ার এক সময় লাশ খুঁজেও পাওয়া যাবে না, ইত‍্যাদি, ইত‍্যাদি হুমকি ধামকিও দিচ্ছে বলে শোনা যাচ্ছে। ছবিতে- ড‍্যানো মিয়া ও তার দুই সন্তান আল ইমরান ও সোয়াদ মিয়া এবং গাইবান্ধা থানায় দাখিলকৃত মামলার অভিযোগপত্র।

ReplyReply allForwar

About parinews