Breaking News
Home / জেলা সংবাদ / গাইবান্ধা পৌরপার্ক পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন করলো জুম বাংলাদেশের স্বেচ্ছাসেবকরা

গাইবান্ধা পৌরপার্ক পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন করলো জুম বাংলাদেশের স্বেচ্ছাসেবকরা

বিশেষ প্রতিবেদক

আসুন সবাই নিজ জেলাকে পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখি, পৌরপার্কে যেখানে সেখানে ময়লা ফেলা থেকে বিরত থাকি শ্লোগাণে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন জুম বাংলাদেশ গাইবান্ধা শাখার উদ্যোগে গাইবান্ধা পৌরপার্ক পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন করা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার সকাল সাড়ে নয়টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত এই অভিযান পরিচালনা করে সংগঠনটির ৪০ জন স্বেচ্ছাসেবক।
প্রথমে স্বেচ্ছাসেবকরা কয়েকটি দলে ভাগ হয়ে পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা কাজে অংশ নেয়। তারা হাতে গ্লাভস লাগিয়ে ময়লা-আবর্জনা তুলে ঝুঁড়িতে রাখেন। পরে ঝুঁড়ি পূর্ণ হলে সেগুলো বড় পলিথিনে রাখা হয়। স্বেচ্ছাসেবকরা ঝাড়ু হাতে বিভিন্নস্থান পরিস্কার-পরিচ্ছন্নও করেন।

জুম বাংলাদেশ গাইবান্ধা শাখার সমন্বয়ক মো. মেহেদী হাসান ও এনটি স্মরণের নেতৃত্বে এতে অংশ নেন স্বেচ্ছাসেবক সানজিদা সানজি, নাজমুল হুদা, মিমজু আক্তার, শারমিন সুলতানা, মেহেদী হাসান অন্তর, সামিউল ইসলাম, তানান হাসান, রাকিব হাসান, কারিমুন আক্তার, শর্মিলা নদী, সাকু মিয়া, পান্না ভট্টাচার্য, রবিন সরকার, রিদম হাসান, উম্মে কুলসুম, আকাশ রহমান, আতিকুর আতিক, সোহেলী আক্তার, রায়হান সাকিব, লিমা দেব, রমা রানি, হারুন-অর-রশিদ, মনির হোসেন, আজিম উদ্দিন, জাহিদ হাসান, রাব্বি হাসান, উম্মে ফারহানা আক্তার ও রুবেল প্রমুখ।
কর্মসূচি শেষে ময়লা-আবর্জনাগুলো গাইবান্ধা পৌরসভার ময়লা অপসারণের গাড়ীতে রেখে দিলে তারা সেগুলো নিদিষ্ট স্থানে ফেলে দিয়ে আসেন।

এ বিষয়ে সমন্বয়ক মো. মেহেদী হাসান বলেন, আমাদের একার পক্ষে সব এলাকা পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন করা সম্ভব নয়। আর তাই সবাইকে সচেতন করতে জুম বাংলাদেশ পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছে। তারপরও আমাদের এই পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রমটি চলমান থাকবে। মানুষকে সচেতন করতে ভবিষ্যতে বড় পরিসরে পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রমের আয়োজন করার পরিকল্পনা রয়েছে বলেও জানান মেহেদী হাসান।

গাইবান্ধা পাবলিক লাইব্রেরী অ্যান্ড ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক জিয়াউল হক জনি বলেন, শহরে কোন কাজে এসে মানুষ একটু বিশ্রামের জন্য পৌরপার্কে যায়। এছাড়া নানান শ্রেণী-পেশার মানুষ প্রতিদিন বিভিন্ন কাজে পৌরপার্কে অবস্থান করে। কিন্তু অসচেতনতার কারণে মানুষ যেখানে-সেখানে বাদামের খোসা, পলিথিন, ময়লা কাগজ, খাবার প্যাকেটসহ বিভিন্ন ময়লা ফেলে রাখেন। এতে করে আমাদের পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে। মানুষকে সচেতন করতে আজ ছোট ছোট স্কুল-কলেজ পড়ুয়া যে ছেলে-মেয়েগুলো পৌরপার্কটি পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন করলো এজন্য তারা ধন্যবাদ পাওয়ার যোগ্য।

পৌরপার্ক পরিস্কার-পরিচ্ছন্নের বিষয়ে জানতে চাইলে গাইবান্ধা পৌরসভার মেয়র মো. মতলুবর রহমান বলেন, পৌরপার্ক পরিস্কার করার দাযিত্ব যেমন পৌরসভার, তেমনি পরিচ্ছন্ন রাখার দায়িত্বও আমাদের সকলের। তাই সবাইকে সচেতন হতে হবে, নির্দিষ্ট স্থানে ময়লা ফেলতে হবে এবং অন্যকেও নির্দিষ্ট স্থানে ময়লা ফেলতে উৎসাহ দিতে হবে। মেয়র আরও বলেন, নিঃসন্দেহে এটি একটি ভালো উদ্যোগ। আমি জুম বাংলাদেশের এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানাই।
এর আগে জুম বাংলাদেশ গাইবান্ধা রেলওয়ে স্টেশন, পৌরপার্ক, জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে, ডিবি রোড, গাইবান্ধা সরকারি কলেজসহ বিভিন্ন স্থানে পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজ করে। এছাড়াও বিভিন্ন দুর্যোগ ও জরুরি সময়ে মানবিক সেবামূলক কার্যক্রম বাস্তবায়নে অংশ নেয় স্বেচ্ছাসেবী এই সংগঠনটি।

About parinews