Breaking News
Home / জেলা সংবাদ / ছেলে শ্বশুর বাড়িতে গিয়ে লাশ হলো বাবা

ছেলে শ্বশুর বাড়িতে গিয়ে লাশ হলো বাবা

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল,গাইবান্ধাঃগাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় ছেলের শ্বশুর বাড়িতে গিয়ে লাশ হয়েছেন সাবেক ইউপি সদস্য মোজাফফর আকন্দ। তাকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় বুধবার (১ জুন) দিনব্যাপী এলাকায় চলছিল নানা গুঞ্জন।
এরআগে মঙ্গলবার (৩১ মে) সন্ধ্যায় গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার মহিমাগঞ্জ ইউনিয়নের বামনহাজরা গ্রামে এঘটনা ঘটে। নিহত মোজাফফর আকন্দ সাঘাটা উপজেলার কচুয়া ইউনিয়নের বাসিন্দা।
স্থানীয়রা জানান, নিহত মোজ্জাফরের ছেলে জাফর ইকবাল বাংলাদেশ পুলিশ বাহীনিতে কর্মরত অবস্থায় সাঘাটা উপজেলার গোরের পাড়া গ্রামের ছাইদুল ইসলামের মেয়ে লিমা আক্তারের ২০১৯ সালের ২৩ আগষ্ট বিয়ে হয় ।
এবপরে পারিবারিক সমস্যার কারনে লিমা আক্তার বাদী হয়ে ৬ জানুয়ারি ২০২০ গাইবান্ধা আদালতে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনের মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় আদালত জাফর ইকবালকে পুলিশের চাকরী থেকে অব্যহতি দেন।
পরে গত ৮ আগষ্ট ২০২০ সালে আদালতে দেনমহরের টাকা পরিশোধ করে লিমাকে তালাক দেন জাফর ইকবাল। এরপর নিজেকে পুলিশের চাকুরীজীবি বলে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার মহিমাগঞ্জ ইউনিয়নের আব্দুল ওয়াহেদের মেয়ে শাপলা আক্তারকে বিয়ে করে।
এ বিয়ের কিছুদিন পর চাকুরী থেকে অব্যহতির বিষয়টি জানাজানি হলে ২য় স্ত্রী শাপলার পরিবারের মাঝে ক্ষোভ বেড়ে যায় । পরে দেন মোহরের টাকার জন্য ছেলের পরিবারকে চাপ দেয়। এ নিয়ে একাধিক বার মিমাংসার চেষ্টা হলে মেয়ের পরিবার ছেলের বাবাকে একা আসতে বলে । এরই একপার্যায়ে গতকাল মঙ্গলবার (৩১ মে) বিকেলের ছেলের বাবা মেজাফফর আকন্দ শাপলার বাবার বাড়িতে যায় । এসময় শাপলার পরিবারের লোকজন ১ম স্ত্রী লিমার পরিবারের লোকজনকে ডাকেন এবং ছেলের দুই স্ত্রী ও তার পরিবারের লোকজন ছেলের বাবাকে পরিকল্পিত ভাবে মারপিট করে পটল ক্ষেতে রেখে যায় । পরে স্থানীয়রা তাকে গুরত্বর অসুস্থ অবস্থায় উদ্ধার করে সাঘাটা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করালে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। নিহত মোজাফফরের স্বজনদের দাবি তাকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে।
সাঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ( ওসি) মতিউর রহমান জানান, এ ঘটনাটি তদন্ত চলছে। নিহত সাবেক ইউপি সদস্য মোজাফফরের লাশটি গাইবান্ধা জেলা হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

About parinews