Breaking News
Home / জাতীয় / ফুলছড়িতে মাথা গোঁজার ঠাঁই পেলো ৩১৮টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার 

ফুলছড়িতে মাথা গোঁজার ঠাঁই পেলো ৩১৮টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার 

রিপন মিয়া, ফুলছড়ি (গাইবান্ধা) প্রতিনিধিঃ সারা দেশের ন্যায় গাইবান্ধার ফুলছড়ি উপজেলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্লোগান “দেশের একজন মানুষও গৃহহীন থাকবে না” এমন নির্দেশনা বাস্তবায়নে জমির মালিকানা সহ পাকা ঘর পেলেন ৩১৮টি পরিবার। আশ্রয়ণ-২ প্রকল্প, গুচ্ছগ্রাম, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় এই তিন সংস্থা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে সারাদেশে সরকারের খাস জমিতে ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জন্য ঘর নির্মাণ করছে। এরই অংশ হিসেবে ফুলছড়ি উপজেলার উড়িয়া ইউনিয়নে ১০০ টি, ফুলছড়ি ইউনিয়নে ৫১ টি, এরেন্ডাবাড়ী  ইউনিয়নে ১১৮টি, ফজলুপুর ইউনিয়নে ৪৯টি ঘর নির্মাণ করা হয়েছে। 

আজ বৃহস্পতিবার (২১ জুলাই) সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা  গণভবন থেকে ভার্চ্যুয়াল পদ্ধতিতে গৃহ হস্তান্তর কর্মসূচির উদ্বোধনের পর পরেই ফুলছড়ি উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে উপজেলা পরিষদ সভাকক্ষে ভূমিহীন এবং গৃহহীনদের মাঝে জমির দলিল ও ঘরের চাবি হস্তান্তর করা হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন ফুলছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আলাউদ্দিন, ফুলছড়ি উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইচ-চেয়ারম্যান আঞ্জুমনোআরা বেগম (মেরি), উপজেলা সমাজসেবা অফিসার রাজীব আহম্মেদ, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার শহিদুজ্জামান শামীম, উপজেলা নির্বাচন অফিসার আব্দুল সোবহান, উপজেলা আইসিটির সহকারী প্রোগ্রামার কাজল মিয়া, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহমুদ হাসান সুজা, কালির বাজার পল্লী বিদ্যুৎ সাব-জোনাল অফিসের ইঞ্জিনিয়ার সোহেল রানা, উড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা কামাল পাশা, গজারিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান খোরশেদ আলী খান খুশু, ফুলছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আজহারুল হান্নান, ফজলুপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু হানিফ প্রামাণিক, ফুলছড়ি উপজেলা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম যাদু, উদাখালী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রাজা মিয়া, ফুলছড়ি উপজেলা প্রেসক্লাবের সাংবাদিকবৃন্দ সহ প্রমুখ।

ফুলছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ আলাউদ্দিন বলেন, দুই শতক জায়গায় নির্মিত প্রতিটি ঘর, দুই কক্ষ বিশিষ্ট ঘরের সঙ্গে একটি রান্নাঘর, একটি সংযুক্ত টয়লেট, ঘরের সামনে একটি বারান্দা ও ব্যবহারের জন্য প্রয়োজনীয় জায়গা রাখা হয়েছে। প্রতিটি পরিবার পানীয় জল এবং বিদ্যুৎ সুবিধা পাবে। অত্যন্ত সচ্ছতার  সাথে ভূমিহীন, গৃহহীন, বিধবা, অসহায়, বয়স্ক এবং প্রতিবন্ধীদের অগ্রাধিকার দিয়ে বিনামূল্যে ঘরগুলো দেয়া হয়েছে।

About parinews