Breaking News
Home / জেলা সংবাদ / সওজ’র পুরাতন জমির একোয়ার নিয়ে জনমনে প্রশ্ন

সওজ’র পুরাতন জমির একোয়ার নিয়ে জনমনে প্রশ্ন

আবুল কালাম আজাদ, পলাশবাড়ী থেকে: গাইবান্ধার পলাশবাড়ী মহাসড়ক উন্নতিকরণের পূর্বে একোয়ার অন্ধকারে, টাকা দেয়ার জন্য নতুন নতুন বাসা ঘড়-দুয়ার তুলছে, কেউ কেউ আবার রীট করছে হাইকোর্টে। মহাসড়কে জমি নতুন অধিগ্রহণের বিষয়টি পরিষ্কার না হওয়ায় রাস্তার দু’পাশের্^র জমির মালিকগণ ভোগান্তিতে পড়েছে।

মহাসড়ক ফোরলেন উন্নতিকরণ কাজ শুরু হয়েছে অনেকদিন থেকেই। সড়ক ও জনপদের পূর্বের অধীন জমি একোয়ার নিয়ে অন্ধকারে জনগণ। রাস্তার দুু’পাশের কতটুকু একোয়ার তা সওজ ও সাসেক কর্তৃপক্ষ পরিস্কার করে নাই। পূর্বের কোন একোয়ারের চিহ্ন বা খুটি নেই। এ নিয়ে কিছু জমির মালিক হাইকোর্টে রীট করেছে। আর যারা রীট করেনি তাদের কি সমাধান দেবে সওজ বা সাসেক কর্তৃপক্ষ? আইন সবার জন্য সমান।

মহাসড়কে টাকা উড়ছে আর এ টাকা নেওয়ার জন্য সওজ এর একোয়ারের মধ্যে নতুন নতুন বাসা-বাড়ী, দোকানপাট দেধার্র্ছে উঠছে। এতে সওজ বা সাসেকের কোন বাঁধা নিষেধ নাই। গোপন সূত্রে জানা যায়, সাসেক বা সওজ এর কতিপয় অসাধু ব্যক্তির ইশারায় এসব তৈরি করা হচ্ছে। নতুন করে জমি অধিগ্রহণে রাস্তার দু’পাশের্^ও পরিস্কার নয়।

পুরাতন জমি একোয়ারের বিষয়টিই অন্ধকারে, এরপর নতুন জমি অধিগ্রহণ পরিষ্কার হয় কি করে? গত ২৫ আগস্ট বুধবার জেলা প্রশাসক ও সাসেক কর্তৃক গণমাইকিং করে নতুন জমি অধিগ্রহণে আসেন। জেলা প্রশাসকের প্রতিনিধি জরিপে আসলেও ২/১টি জায়গায় মাপ দিয়ে তারা চলে যান। পরদিন ২৬ আগস্ট আবার আসলেও ২/১টি জায়গা মাপ দিয়ে চলে যায়। এমতাবস্থায় ভূমির মালিকগণ জরুরী কাজকর্ম ফেলে উপস্থিত থাকলেও সওজ ও সাসেকের সঠিক পূর্র্বের মাপযোগ না থাকায় হয়রানীর স্বীকার হচ্ছে। জনসাধারণের দাবী পূর্বের একোয়ার পরিস্কারভাবে প্রদর্শন করলে নতুুন মাপযোগটি পরিস্কার জানতে পারবে। হয়রানী বা ভোগান্তির স্বীকার হবেনা।

About parinews