Breaking News
Home / আন্তর্জাতিক / সহযোগী ফাহিমকে হারিয়ে মাসুদের হুঙ্কার শেষ রক্তবিন্দু দিয়ে তালিবানের বিরুদ্ধে লড়ব

সহযোগী ফাহিমকে হারিয়ে মাসুদের হুঙ্কার শেষ রক্তবিন্দু দিয়ে তালিবানের বিরুদ্ধে লড়ব

ফাহিম দাস্তি এবং আহমেদ মাসুদ।
ছবি: সংগৃহীত।

অনলাইন ডেস্কঃ

পঞ্জশির উপত্যকার বিস্তীর্ণ এলাকা তালিবানের কব্জায় এলেও লড়াই চালাতে বদ্ধপরিকর ‘ন্যাশনাল রেজিস্ট্যান্স ফ্রন্ট’ (নর্দার্ন অ্যালায়েন্স)-এর নেতা আহমেদ মাসুদ। সোমবার এক ভিডিয়ো বার্তায় তিনি বলেন, ‘‘আমরা এখনও পঞ্জশিরে তালিবানের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ চালিয়ে যাচ্ছি। শেষ রক্তবিন্দু পর্যন্ত চালিয়ে যাব।’’

সোমবার সকালে খবর আসে তালিবান বাহিনী খুন করেছে নর্দার্ন অ্যালায়েন্সের মুখপাত্র ফাহিম দাস্তিকে। তার কিছুক্ষণ পরেই নেটমাধ্যমে ওই ভিডিয়ো বার্তা প্রকাশ করেন মাসুদ। এমনকি, তালিবান মুখপাত্র জবিরুল্লা মুজাহিদ দাবি করেন পঞ্জশিরে মাসুদের বাড়িরও দখল নিয়েছেন তাঁরা। এই দাবির পক্ষে ছবি এবং ভিডিয়োও প্রকাশ করে তালিবান। তাতে দেখা যায় মাসুদের বাড়ির সামনে দাঁড়িয়ে রয়েছেন তালিবান যোদ্ধারা।

দাস্তির পাশাপাশি, পঞ্জশিরে সোমবার তালিব বাহিনীর সঙ্গে লড়াইয়ে নিহত হয়েছেন মাসুদের আত্মীয় আমির সাহিব আহমেদ মাসুদ এবং নর্দার্ন অ্যালায়েন্সের অন্যতম কমান্ডার সাহিব আব্দুল ওয়াদুদ জোহর। ভিডিয়ো বার্তার মাসুদ বলেছেন, ‘‘পঞ্জশিরে পাকিস্তান সেনা তালিবানের হয়ে লড়ছে। তারাই আমার পরিজন এবং ফাহিমকে খুন করতে তালিবানকে সাহায্য করছে।’’

আফগানিস্তানে পাক বাহিনী এবং তার দোসর তালিবানের অত্যাচার দেখেও আন্তর্জাতিক মহল নীরব কেন, সে প্রশ্নও তুলেছেন মাসুদ। তিনি বলেছেন, ‘‘গোটা বিশ্ব জানে পাকিস্তানই তালিবানের মদতদাতা। তবুও কেউ কিছুই বলছে না।’’

প্রসঙ্গত, মাসুদের বাবা আহমেদ শাহ মাসুদ প্রায় আড়াই দশক আগে তালিবান বিরোধী নর্দার্ন অ্যালায়্যান্স-এর প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। সে সময়ও পঞ্জশিরের দখল নিতে পারেনি তালিবান। ২০০১-এ টুইট টাওয়ার হামলার দু’দিন আগে সাংবাদিকের ছদ্মবেশে আল কায়দার মানববোমা হামলায় তিনি নিহত হয়েছিলেন।

সংবাদ সংস্থা

About parinews