Breaking News
Home / জেলা সংবাদ / সাঘাটয়  স্ত্রীকে তালাক।। মারপিটের ঘটনায়, স্বামী জেলহাজতে।।

সাঘাটয়  স্ত্রীকে তালাক।। মারপিটের ঘটনায়, স্বামী জেলহাজতে।।

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল, গাইবান্ধাঃ সাঘাটায় প্রবাসী স্বামী  দেশে ফিরে স্ত্রীকে একতরফা তালাক , মারপিটের ঘটনায় স্ত্রীর মামলা  স্বামী জেল হাজতে ।।শিউলি তার বাড়িতে গেলে মারপিট ঘটনা ঘটে ।এ ব্যাপারে থানায় মামলা হলে  মামলায় স্বামীকে গ্রেফতার করে জেলহাজতে প্রেরণ করেন সাঘাটা থানা পুলিশ। 

জানা যায়, সাঘাটা উপজেলার ঘুড়িদহ গ্রামের মৃত্যু হাফিজুর রহমান এর পুত্র জুয়েল রানা ও একই ইউনিয়ন এর পচাঁবস্তা গ্রামের মৃত্যু ছামছুল আলমের মেয়ে শিউলি বেগমের গত ২০০৮ ইং সালে ইসলামি শরিয়ত মোতাবেক তাদের দুজনের বিবাহ রেজিষ্ট্রি সম্পন্ন হয় পারিবারিক ভাবে বিবাহের পর থেকে ৯ বছর সুখে- দুখে এক সাথে সংসার কাটে তাদের।  জুয়েল রানা স্ত্রী ও পরিবারের সুখের কথা ভেবে কাজের জন্য বিদেশ যেতে চায়। 

বিদেশে যেতে  জুয়েল রানা তার পরিবারের সংগে কথা বলে শিউলি বেগমের মাধ্যমে তার বড় ভাই প্রবাসী বাবুর নিকট থেকে ৫০০,০০০ লক্ষ টাকা কর্জ চায়  শিউলির বড় ভাই তার বোনের সুখের কথা ভেবে উক্ত টাকা জুয়েল রানার হাতে দেয়। সুধু তাই না,  শিউলি বেগম তার ব্যবহারিত স্বর্ন বিক্রি করে স্বামী জুয়েল রানাকে বিদেশে পাঠায় জুয়েল রানা কে। সে ওমান নামক একটি দেশে যাওয়ার পর শিউলি বেগম তার স্বামীর বাড়ীতে থাকে।

কিছুদিন পর জুয়েল রানার পরিবার বিভিন্ন মিথ্যা অপবাদ সহ পরিকল্পিত ভাবে তার উপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন  শুরু করে পরিবারের লোকজন।শিউলি তার স্বামী জুয়েল রানাকে নির্যাতনের কথা জানালে সে কোন প্রতিবাদ না করে শিউলিকে বিভিন্ন গালিগালাজ করতে থাকে এবংমানষিক নির্যাতন চালায়। সে সইতে না পেয়ে শিউলি তার বাবার বাড়ীতে চলে যায়। পরিবারের মুখে শিউলির চরিত্র বিষয় বিভিন্ন মিথ্যা কথা শুনে জুয়েল রানা মোবাইল ফোনে শিউলির সংগে খারাপ ব্যবহার করতো।

শিউল হতাশ না হয়ে তার স্বামীর দেশে ফিরে আসার অপেক্ষায় নিজেকে সান্ত্বনা দিত।গত( ৮ মার্চ ২০২২) তারিখে  হঠাৎ জানতে পারে জুয়েল রানা তার দেশের বাড়ীতে এসেছে। বাড়ীতে আসার  দুই দিন পর শিউলি বেগম লোক মারফত জানতে পারে তার স্বামী দেশে ফিরে ওই দিনই তাকে এক তরফা তালাক দিয়েছে। শুধু তাই নয়, বরিশাল জেলা থেকে প্রেমের মাধ্যমে বিদেশ থেকে সম্পর্ক গড়ে তোলা একটি মেয়েকে বিবাহের উদ্দেশ্য তার বাড়িতে এনেছে।শিউলি জানতে পেয়ে গত( ১৫ মার্চ) ২০২২ তারিখে   তার স্বামী জুয়েল রানার বাড়িতে যায়। শিউলি তার স্বামীর বাড়িতে প্রবেশ করা মাত্রই তার স্বামীসহ পরিবারের লোকজন তাকে মারপিট করে ও  বিভিন্ন হুমকি দেয়।

জুয়েল রানা বলে তোকে তালাক দিয়েছি তুই কোন লজ্জায় আমার বাড়ীতে প্রবেশ করছিস!কোন দিন এই বাড়িতে আসার চেষ্টা করবি না। পরে স্থানীয় লোকজন মারফতে অসুস্থ শিউলি সাঘাটা হাসপাতালে ভর্তি হয়। বিষয়টি এলাকার লোকজন দফায় দফায় আপোষ মিমাংসার চেষ্টা করে। জুয়েল রানা শিউলি বেগম কে স্ত্রী হিসাবে আর কখনো মেনে নিবো না বার বার বলতে থাকে।

আর শিউলি বলে, ১৪ বছর সংসার করার পর আজ আমি কোথায় যাব। আমি একজন এতিম মেয়ে।আমি কোন কিছু চাই না শুধু আমার স্বামী হিসাবে জুয়েল রানাকেই চাই। এলাকায় সুষ্ঠু বিচার না পেয়ে ভুক্তভোগী  শিউলি বেগম বাদী হয়ে ১৯ মার্চ  ২০২২ তারিখে  নারী শিশু নির্যাতন আইনে জুয়েল রানা সহ ৪ জনের নাম উল্লেখ করে সাঘাটা থানায় একটি মামলা দেয়।পরে, মাললার আসামী জুয়েল রানাকে সাঘাটা থানা পুলিশ গ্রেফতার করে গাইবান্ধা জেল হাজতে প্রেরন করেছেন।শিউলি আরো জানায়, বিজ্ঞ আদালত তাকে জামিন দিলে সে তার নতুন স্ত্রীকে নিয়ে বিদেশে পাড়ি জমাতে পারেন ।  এতে ভুক্তভোগী ন্যয় বিচার থেকে বঞ্চিত হবার আশংকা করছে।

About parinews