Breaking News
Home / জেলা সংবাদ / সাঘাটায় টিকটকে পরিচয়ে অপহরণের ঘটনায় নারী আটক

সাঘাটায় টিকটকে পরিচয়ে অপহরণের ঘটনায় নারী আটক

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল,গাইবান্ধাঃগাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলায় টিকটকে পরিচয়ে অতঃপর অপহরনের ঘটনায় অপহৃত লতিফাকে উদ্ধার ও এ ঘটনায় জড়িত ১ জনকে মহিলাকে আটক করেছে সাঘাটা থানা পুলিশ। আটককৃত নিশা আক্তার ভোলা জেলার শষিভূষন থানার দক্ষিন চরমঙ্গল গ্রামের শাহাদত হোসেনের স্ত্রী। 
বোনারপাড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র সূত্রে জানা গেছে,  উপজেলার পদুমশহর গ্রামের লোকমানের কন্যা ১০ শ্রেণীর ছাত্রী লতিফা আক্তার (১৬)। গত ৫ মাস পূর্বে মোছাঃ নিশা আক্তার (৩০) এর সাথে লতার টিকটকের মেসেঞ্জারের মাধ্যমে পরিচয় হয়। নিশা আক্তার বেশির ভাগ সময়ে লতিফার সাথে ইমো নাম্বার ব্যবহার করে যোগযোগ করত। কম বয়স ও টিকটক ব্যবহারের সুযোগ নিয়ে নিশা আক্তার লতিফাকে চাকুরীর দেয়ার কথা বলে ও চট্রগ্রাম জেলার বিভিন্ন লোকেশনে টিকটক এ্যাপে ভিডিও তৈরির প্রলোভন দেখায়। নিশা আক্তারের কথার মাঁরপ্যাচে লতিফা রাজী হয়। এরই ধারাবাহিকতায় গত ৯ মে লতিফা প্রাইভেট পড়ার জন্য নতুন বন্দর স্কুলে যায়। স্কুলে থাকা অবস্থায়  নিশা আক্তার লতিফাকে ফোন করে গাইবান্ধা যেতে বলে। চট্রগ্রাম থেকে নিশা আক্তার গাইবান্ধা বাসস্ট্যান্ডে আসে। ভিক্টিম লতিফা গাইবান্ধা গেলে নিশা আক্তার লতিফাকে নিয়ে বাসে করে তার ভাড়া বাসা চট্রগ্রাম জেলার চান্দগাঁও থানার শোলশহর এলাকায় গিয়ে উঠে। কৌশলে নিশা আক্তার লতার ব্যবহৃত মোবাইল ফোন বন্ধ করে দেয়। ঐ দিন সন্ধ্যায় লতিফার মা অনেক খোজাখুজি করে তার মেয়ের কোন সন্ধান না পাওয়ায় তিনি বাদী হয়ে সাঘাটা থানায় জিডি করেন। উক্ত জিডির প্রেক্ষিতে বোনারপাড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ ব্যাপক অভিযান ও তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে গত  ১২ মে  চট্রগ্রাম জেলার চান্দগাঁও থানার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করা হয়। 
 সবশেষে গত ১৩ মে বিকেলে নিশা আক্তারের ভাড়া বাসা চট্রগ্রাম জেলার চান্দগাঁও থানার গনি মাবিয়া ম্যানশন, ০৬ নং ওয়ার্ড পূর্ব শোলশহর এলাকায় অভিযান করে লতিফাকে উদ্ধার ও নিশা আক্তারকে চান্দগাঁও থানার সহযোগীতায় বোনারপাড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ আটক করে। এ ব্যাপারে বোনারপাড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনর্চাজ রাকিবুল হাসান জানান, নিশা আক্তার একজন খারাপ প্রকৃতির মহিলা ও পতিতা বৃতির সাথে জড়িত। নিশা আক্তারের বিরুদ্ধে উক্ত ঘটনায় একটি নিয়মিত মামলা দায়রের প্রস্ততি চলছে ও ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

About parinews