Breaking News
Home / জেলা সংবাদ / সাদুল্লাপুরে হিন্দু পরিবারের হামলা-ভাঙচুর-লুট

সাদুল্লাপুরে হিন্দু পরিবারের হামলা-ভাঙচুর-লুট

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল,গাইবান্ধাঃগাইবান্ধার সাদুল্লাপুর উপজেলার হাসানপাড়া গ্রামের মধু চন্দ্র দাসের বাড়িতে হামলার ঘটনা ঘটেছে। এসময় বসতঘর-আসবাপত্র ভাঙচুর ও লুটের তাণ্ডব চালিয়েছে হামলাকারীরা।
বৃহস্পতিবার (২৬ মে) দিনগত রাত আড়াইটার দিকে উপজেলার ধাপেরহাট ইউনিয়নের হাসানপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
জানা যায়, ওই গ্রামের মৃত চেংটু মিয়ার ছেলে ইসলাম মিয়া ও ময়নুল গংদের সঙে মধু চন্দ্র দাসের জমি সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে ময়নুল ও তার লোকজন মধুকে বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করার জন্য ভয়ভীতি ও টাকার দাবী করে আসছিল। এ বিষয়ে মধু চন্দ্র গত ২১ মে প্রতিপক্ষদের বিরুদ্ধে থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন। এ খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার দিনগত রাত আড়াইটার দিকে ২০-২৫ জন দেশীয় ধারালো অস্ত্র, পেট্রোল, লাঠিসোডা নিয়ে মধুর বসত বাড়িতে প্রবেশ করে সবাইকে অস্ত্রের মুখে জিম্মী করে ঘন্টাব্যাপী তাণ্ডব চালিয়ে ঘরবাড়ি ভাঙচুর করাসহ লুটতারাজ ঘটায়। এ সময় জরুরী সেবা ৯৯৯ ফোন করলে ধাপেরহাট পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের দল দ্রুত ঘটনা স্থলে ছুটে এলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। এতে মধু চন্দ্রের প্রায় ৪ লাখ টাকার মালামাল ক্ষয়ক্ষতি ও লুটতরাজ হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
এরপর শুক্রবার সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শনে আসেন সাদুল্লাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার রায়, ধাপেরহাট পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ সেরাজুল হক, ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল কবির মিন্টু, সাদুল্লাপুর হিন্দু বৌদ্ধ খিষ্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি রণজিৎ অধিকারী, উপজেলা পুজা উৎযাপন পরিষদের সভাপতি প্রভাত অধিকারী, হিন্দু পরিষদের নেতা মন্টু দাস, ইউনিয়ন পর্যায়ের পুজা উৎযাপন কমিটির সভাপতি বিপ্লব কর্মকার, উজ্জল শাহাসহ আরও অনেকে। তারা সৃষ্ট ঘটনাটি তদন্ত সাপেক্ষে অপরাধীদের আইনের আওতায় এনে গ্রেফতারের দাবী জানান।
ধাপেরহাট ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যান শফিকুল কবির মিন্টু বলেন, ঘটনাটি খুবই দুঃখজনক। এই পরিবারটির সব কিছু ভেঙে তছনছ করা হয়েছে। এখন মাথা গোজার ঠাই নে তাদের। এর উপযুক্ত বিচার দাবি জানাচ্ছি।
সাদুল্লাপুর থানার ওসি প্রদীপ কুমার রায় জানান, এ নিয়ে মামলার প্রস্তুতি চলছে। খুব দ্রুত অপরাধীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হবে।

About parinews